চৈতন্য ও বৈষ্ণবজীবনী | লাল নীল দীপাবলি | হুমায়ুন আজাদ | বাংলা প্রস্ততি

চৈতন্য ও বৈষ্ণবজীবনী : চৈতন্যদেব এঁক অক্ষরও কবিতা লেখেন নি, তবু তিনি বাঙলা সাহিত্যের ইতিহাসে অধিকার ক’রে আছেন বড়ো স্থান। বাঙলা সাহিত্যে তাঁর প্রভাব অসীম। তিনি মধ্যযুগের বাঙলাদেশে জাগিয়েছিলেন বিশাল আলোড়ন, তাতে অনেকখানি বদলে গিয়েছিলো বাঙলার সমাজ ও চিন্তা ও আবেগ। তিনি সাহিত্যে যে আলোড়ন জাগান, তা তো তুলনাহীন। মধ্যযুগের সমাজ ছিলো সংস্কারের নিষ্ঠুর দেয়ালে আবদ্ধ, চৈতন্যদেব তার মধ্যে আনেন আকাশের মুক্ত বাতাস। তিনি প্রচার করেন ভালোবাসার ধর্ম, যাকে বলা হয় বৈষ্ণব ধর্ম। এর ফলে মধ্যযুগের মানুষ লাভ করে কিছুটা মানুষের মর্যাদা; এবং মধ্যযুগের কবি বলেন, সবার উপরে মানুষ সত্য, তাহার উপরে নাই।’ চৈতন্যদেবের আবির্ভাবে বাঙলার জীবনে, সমাজে এসেছিলো জাগরণ। এর ফলেই বাঙলা সাহিত্য ফুলেফুলে ভরে ওঠে।

চৈতন্য ও বৈষ্ণবজীবনী | লাল নীল দীপাবলি | হুমায়ুন আজাদ | বাংলা প্রস্ততি

চৈতন্যদেব প্রেমের অবতার। তাঁর সম্পর্কে গভীর আবেগে দীনেশচন্দ্র সেন লিখেছেন যে প্রেম পৃথিবীতে একবার মাত্র রূপ গ্রহণ করেছিলো, তা বাঙলাদেশে। তাঁর কথায় যেমন আছে আবেগ, তেমনি রয়েছে সত্য। চৈতন্যদেব জন্মেছিলেন ১৪৮৬ অব্দে নবদ্বীপে। তাঁর পিতার নাম জগন্নাথ মিশ্র; মায়ের নাম শচীদেবী। ভালোবেসে চৈতন্যদেবকে মানুষ নানা নামে ডাকে। তাঁর আসল নাম ছিলো বিশ্বম্ভর, ডাক নাম নিমাই। তাঁর গায়ের রঙ ছিলো গৌরবর্ণ, তাই তাঁর আরেক নাম গৌরাঙ্গ, সংক্ষেপে গোৱা বাল্যে চৈতন্য ছিলেন যেমন দুষ্ট, তেমনি মেধাবী। বেশ ভালোভাবে পড়াশুনা ক’রে যৌবনেই চৈতন্য পণ্ডিত হিশেবে বিখ্যাত হয়ে ওঠেন।

[ চৈতন্য ও বৈষ্ণবজীবনী | লাল নীল দীপাবলি | হুমায়ুন আজাদ | বাংলা প্রস্ততি ]

ছাত্রদের পড়ানোর জন্যে একটি ইস্কুল খোলেন তিনি। কিন্তু বেশিদিন তা চলে নি। একবার গয়া যান চৈতন্য। সেখানে দেখা পান ঈশ্বরপুরীর এবং দীক্ষা গ্রহণ করেন তাঁর কাছে। এরপরে গোরা হয়ে ওঠেন শ্রীচৈতন্য। তিনি নিজেকে বিলিয়ে দেন ভগবত প্রেমে, মেতে ওঠেন হরিসংকীর্তন এবং ভগবতপাঠে। এরপর সারাজীবন কেটেছে তাঁর কৃষ্ণপ্রেমে। তিনি প্রচার করেছেন প্রেম। তাঁর অপূর্ব ধর্মে ধীরেধীরে এসে যোগ দিয়েছে প্রেমপাগল মানুষেরা।

যোগপীঠ ১৮৮০ র দশকে ভক্তিবিনোদ ঠাকুর কর্তৃক মায়াপুরে নির্মিত চৈতন্য ও বৈষ্ণবজীবনী | লাল নীল দীপাবলি | হুমায়ুন আজাদ | বাংলা প্রস্ততি

চৈতন্যদেব কৃষ্ণপ্রেমকে জীবনের সারকথা বলে মেনে নিয়েছিলেন। সেখানে মানুষে মানুষে কোনো ভেদ নেই, সবাই সমান। এ যে কতো বড়ো ঘোষণা, তা মধ্যযুগের পটভূমি ছাড়া বোঝা কঠিন। তখন মানুষে মানুষে ছিলো সীমাহীন প্রভেদ, এমনকি ধর্মেও সকলের অধিকার ছিলো না। এ-সময়েই শ্রীচৈতন্য বলেন, ‘মুচি হয়ে গুচি হয় যদি কৃষ্ণ ভজে। এ ঘোষণা মানুষকে বিরাট মূল্য দেয়। চৈতন্যদেব বেশিদিন বাঁচেন নিঃ মাত্র ৪৮ বছর বয়সে ১৫৩৩ সালে তিনি পুরীতে প্রাণত্যাগ করেন।

তাঁর মৃত্যু সম্বন্ধে নানা অলৌকিক গল্প প্রচলিত আছে। কেউ বলেন, তিনি পুরীতে কৃষ্ণপ্রেমে এতো পাগল ছিলেন যে সমুদ্রের নীল জলকে তাঁর মনে হয়েছিলো কৃষ্ণ কৃষ্ণ মনে ক’রে তিনি সমুদ্রে ঝাঁপিয়ে প’ড়ে প্রাণত্যাগ করেন। আবার কেউ বলেন, রথযাত্রার সময়ে তিনি নামকীর্তন ক’রে নাচছিলেন, তখন তাঁর গায়ে আঘাত লাগে। তাতেই তিনি মারা যান।

শ্রীচৈতন্যের জীবন ও শিক্ষা চৈতন্য ও বৈষ্ণবজীবনী | লাল নীল দীপাবলি | হুমায়ুন আজাদ | বাংলা প্রস্ততি

বাঙলার জীবনে যেমন বাঙলা সাহিত্যেও তেমনি চৈতন্যদেবের প্রভাব অপরিসীম। অনেকটা তাঁকে কেন্দ্ৰ ক’রেই রচিত হয়েছে মধ্যযুগের গৌরব বিশাল বৈষ্ণব সাহিত্য। এ সাহিত্যে আছে পদাবলি, আছে দর্শন, আছে জীবনীসাহিত্য। পদাবলির কথা আগেই বলেছি। বৈষ্ণব জীবনীসাহিত্যও মধ্যযুগের মূল্যবান সৃষ্টি, কেননা যে-মধ্যযুগ কেটেছে দেবতাদের গুণগানে, সেখানে বৈষ্ণবেরা বসিয়েছিলেন মানুষকে। দেবতার বদলে মানুষের প্রাধান্য বৈষ্ণব জীবনসাহিত্যের বড়ো বৈশিষ্ট্য।

আজকাল যেভাবে জীবনী রচিত হয়, বৈষ্ণবজীবনী তেমনভাবে রচিত হয় নি। এখন আমরা মানুষকে মানুষ হিশেবেই দেখতে ভালোবাসি, মানুষকে দেবতা ক’রে তুলি না। মধ্যযুগে এটা সম্ভব ছিলো না। এ-জীবনীগুলো যাঁরা রচনা করেছিলেন, তাঁরা ছিলেন ভক্ত। চৈতন্যদেবের ভক্তের চোখে চৈতন্যদেব সাধারণ মানুষ নন, তিনি অবতার। তাই এ জীবনীসমূহে মানুষ অনেক সময় দেবতা হয়ে উঠেছেন। এখানে অবলীলায় স্থান পেয়েছে অলৌকিক ঘটনা, যেগুলোকে তাঁরা সত্যি ব’লে ভাবতেন। আজকের চোখে নিছক কল্পনা, কিন্তু সেকালে তাঁরা এগুলোকে অবিশ্বাস্য ব’লে অবহেলা করতে পারেন নি। তবু এ জীবনীগুলো বড়ো মূল্যবান। জীবনীগুলোতে সেকালের পরিচয় আছে, আছে সে-সময়ের সমাজের চিত্র। আর যাঁর জীবনকাহিনী বর্ণনা করা হয়েছে, তাঁকেও আমরা অনেক সময় পাই মানুষ হিশেবে।

বিশ্বের সবচেয়ে বড়ো ৬০ ফুট চৈতন্য মহাপ্রভু মূর্তি নবদ্বীপে চৈতন্য ও বৈষ্ণবজীবনী | লাল নীল দীপাবলি | হুমায়ুন আজাদ | বাংলা প্রস্ততি

চৈতন্যদেবের মৃত্যুর অল্প পরে তাঁর দুটি জীবনীগ্রন্থ লেখা হয় সংস্কৃত ভাষায়। বাঙলা ভাষায় প্রথম চৈতন্যদেবের যে-জীবনী লেখা হয়, তার নাম চৈতন্যভাগবত। যিনি লেখেন, তাঁর নাম বৃন্দাবন দাস [? ১৫০৭–১৫৮৯]। এটি লেখা হয়েছিলো চৈতন্যদেবের মৃত্যুর পনেরো বছরের মধ্যে। বৃন্দাবন দাসকে এ গ্রন্থ লেখার প্রেরণা দিয়েছিলেন নিত্যানন্দ প্রভু। এ-গ্রন্থের ঘটনাগুলো তিনি শুনেছিলেন চৈতন্যের সহচরদের মুখে, আর তাকেই তিনি কাব্যরূপ দান করেন। এর মধ্যে অনেক অলৌকিক ঘটনাও আছে। এ-বইটি বিশাল।

বৃন্দাবন দাসের চৈতন্যভাগবত-এর পরে চৈতন্যদেবের আরো একটি জীবনী রচনা করেন লোচন দাস [১৬শ শতকে]। এ-বইয়ের নাম চৈতন্যমঙ্গল। এটি চৈতন্যভাগবত-এর চেয়ে ছোটো বই। চৈতন্যদেবের জীবনী হিশেবে যে-বই সবচেয়ে বিখ্যাত, তার নাম চৈতন্যচরিতামৃত। এ-বইয়ের লেখক কৃষ্ণদাস কবিরাজ [১৫৩০–১৬১৫]। এ-বইটিতে চৈতন্যদেবের জীবনী বর্ণনার সাথে সাথে ব্যাখ্যা করা হয়েছে তাঁর দর্শন। কাব্য হিশেবেও এটি চমৎকার। নানা যুক্তির সাহায্যে কৃষ্ণদাস এ-বইতে বৈষ্ণব দর্শন ব্যাখ্যা ক’রে প্রতিষ্ঠিত করতে চেয়েছেন। তাঁর বর্ণনা সহজ সরল, তবে মাঝেমাঝে কবি চমৎকার উপমারূপক ব্যবহার করেছেন কঠিন তত্ত্ব ব্যাখ্যা করার জন্যে। রাধাকৃষ্ণ তত্ত্ব বোঝানোর জন্যে তিনি বলেন :

মৃগমদ তার গন্ধে যৈছে অবিচ্ছেদ।

অগ্নি জ্বালাতে যৈছে নাহি কভু ভেদ

লীলারস আস্বাদিতে ধরে দুইরূপ।

রাধাকৃষ্ণ ঐছে সদা একই স্বরূপ ।

কবি কৃষ্ণদাস কবিরাজ ছিলেন ভক্ত। বর্ধমানে কাটোয়ার কাছে ঝামটপুরে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তিনি কাব্যে নিজের সম্বন্ধে যে-বিনীত ভাষণ করেছেন, তা শোনার মতো:

আমি অতি ক্ষুদ্র জীব পক্ষী রাঙাটুনি।

সে যৈছে তৃষ্ণার পিয়ে সমুদ্রের পানি ॥

তৈছে এক কণা আমি ছুঁইল লীলার।

এই দৃষ্টান্ত জানিহ প্রভুর লীলার বিস্তার।।

আমি লিখি এই মিথ্যা করি অভিমান।

আমার শরীর কান্ঠপুতুলী সমান ।

এর পরে জয়ানন্দ [জন্ম ? ১৫১২] রচনা করেন চৈতন্যমঙ্গল। চৈতন্যদেবের জীবনী ছাড়া বৈষ্ণব ধর্মের আর যাঁরা প্রধান ব্যক্তি ছিলেন, তাঁদের জীবন নিয়েও বেশ কিছু বই লেখা হয়েছে। অদ্বৈত আচার্য ছিলেন এমন এক ব্যক্তি। কৃষ্ণদাস তাঁর বাল্যকালের কথা লেখেন সংস্কৃত ভাষায়, বইটির নাম বাল্যলীলাসূত্র। পরে শ্যামানন্দ বইটি বাঙলা ভাষায় অনুবাদ করেন অদ্বৈততত্ত্ব নামে। তাঁর সম্বন্ধে লেখা আরেকটি বইয়ের নাম অদ্বৈতপ্রকাশ। কেবল অদ্বৈতকে নিয়েই জীবনীগ্রন্থ রচিত হয় নি, তাঁর স্ত্রী সীতাদেবীকে নিয়েও জীবনীগ্রন্থ লেখা হয়েছে। সীতা দেবীর একটি জীবনী রচনা করেছেন বিষ্ণুদাস আচার্য, নাম “সীতাগুণকদম্ব”। আরেকটি জীবনী রচনা করেন লোকনাথ দাস, নাম সীতাচরিত।

এ-সমস্ত বই রচিত হয়েছিলো ষোড়শ শতকে। সপ্তদশ শতকে জীবনীর বিষয়বস্তু অন্যরকম হয়ে দাঁড়ায়। এতোদিন যে-সকল জীবনী রচিত হয়, সেগুলো প্রধানত চৈতন্যদেব ও অদ্বৈত আচার্যের এবং তাঁর স্ত্রীর জীবনী। সপ্তদশ শতাব্দীতে বৈষ্ণব জীবনী সাহিত্যের নায়ক হয়ে ওঠেন শ্রীনিবাস ও নরোত্তম। এসব গ্রন্থের একটি হচ্ছে নিত্যানন্দ দাসের প্রেমবিলাস। গুরুচরণ দাস রচনা করেন নিবাস ও তাঁর পুত্রের বাল্যজীবনী, নাম প্রেমামৃত। বৈষ্ণব জীবনীগুলোর মূল্য অশেষ।

আরও পড়ুন:

রায়গুণাকর ভারতচন্দ্র | লাল নীল দীপাবলি | হুমায়ুন আজাদ | বাংলা প্রস্ততি

“চৈতন্য ও বৈষ্ণবজীবনী | লাল নীল দীপাবলি | হুমায়ুন আজাদ | বাংলা প্রস্ততি”-এ 1-টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন