জন্মই আমার আজন্ম পাপ কবিতা – দাউদ হায়দার

জন্মই আমার আজন্ম পাপ কবিতা – দাউদ হায়দার বাংলা ভাষার একজন আধুনিক কবি যিনি সত্তর দশকের কবি হিসাবে চিহ্নিত। তার একটি বিখ্যাত কাব্যের নাম “জন্মই আমার আজন্ম পাপ”।

 

দাউদ হায়দার জন্মই আমার আজন্ম পাপ কবিতা - দাউদ হায়দার

 

দাউদ হায়দার একজন বাংলাদেশী বাঙালী কবি, লেখক ও সাংবাদিক, যিনি ১৯৭৪ খ্রিষ্টাব্দে দেশ থেকে নির্বাসনের পর থেকে প্রথমে তের বছর ভারতে ও ১৯৮৭ থেকে জার্মানীতে নির্বাসিত জীবন যাপন করছেন। তিনি বর্তমানে একজন ব্রডকাস্টিং সাংবাদিক। তিনি বাংলা ভাষার একজন আধুনিক কবি যিনি সত্তর দশকের কবি হিসাবে চিহ্নিত। তার একটি বিখ্যাত কাব্যের নাম “জন্মই আমার আজন্ম পাপ”।

তার কবিতা “কালো সূর্যের কালো জ্যোৎস্নায় কালো বন্যায়” ১৯৭৪ সালের ২৪ই ফেব্রুয়ারি দৈনিক সংবাদ পত্রিকায় মুদ্রিত হলে তার বিরূদ্ধে আদালতে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের জন্য মামলা করা হয়। পুলিশ তাকে ১১ই মার্চ ১৯৭৪ তারিখে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের কারণে গ্রেফতার করে। এরপর ১৯৭৪ এর ২১শে মে সরকার থাকে দেশ থেকে বহিষ্কার করে দেয়।

তৎকালীন বঙ্গবন্ধুর সরকার দাউদ হায়দারকে নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়। বাংলাদেশ সরকার তখন চায়নি দেশে ধর্মী য় কারণে অস্থিতিশীলতার সৃষ্টি হোক। ১৯৭৩ সালে কবিকে নিরাপত্তামূলক কাস্টডিতে নেয়া হয়। ১৯৭৪ এর ২০ মে সন্ধ্যায় তাকে জেল থেকে মুক্তি দেওয়া হয় এবং ২১শে মে সকালে বাংলাদেশ বিমানের একটা রেগুলার ফ্লাইটে করে তাকে কলকাতায় পাঠানো হয়। ওই ফ্লাইটে তিনি ছাড়া আর কোনো যাত্রী ছিল না। তার কাছে সে সময় ছিল মাত্র ৬০ পয়সা এবং কাঁধে ঝোলানো একটা ছোট ব্যাগ (ব্যাগে ছিল কবিতার বই, দু’জোড়া শার্ট, প্যান্ট, স্লিপার আর টুথব্রাশ)।

 

জন্মই আমার আজন্ম পাপ কবিতা – দাউদ হায়দার

 

জন্মই আমার আজন্ম পাপ, মাতৃজরায়ু থেকে নেমেই জেনেছি আমি
সন্ত্রাসের ঝাঁঝালো দিনে বিবর্ণ পত্রের মত হঠাৎ ফুৎকারে উড়ে যাই
পালাই পালাই সুদূরে

চৌদিকে রৌদ্রের ঝলক
বাসের দোতলায় ফুটপাতে রুটির দোকানে দ্রুতগামী
নতুন মডেলের
চকচকে বনেটে রাত্রির জমকালো আলো
ভাংগাচোরা চেহারার হদিস

ক্লান্ত নিঃশব্দে আমি হেঁটে যাই
পিছনে ঝাঁকড়া চুলওয়ালা যুবক। অষ্টাদশ বর্ষীয়ার নিপুণ ভঙ্গী
দম্পতির অলৌকিক হাসি প্রগাঢ় চুম্বন

আমি দেখে যাই, হেঁটে যাই, কোথাও সামান্য বাতাসে উড়ে যাওয়া চাল-
অর্থাৎ আমার নিবাস।

ঘরের স্যাঁতসেতে মেঝেয় চাঁদের আলো এসে খেলা করে
আমি তখন সঙ্গমে ব্যর্থ, স্ত্রীর দুঃখ অভিমান কান্না
সন্তান সন্তুতি পঙ্গু
পেটে জ্বালা, পাজরায় তেল মালিশের বাসন উধাও-
আমি কোথা যাই? পান্তায় নুনের অভাব।

নিঃসংগতাও দেখেছি আমি, উৎকন্ঠার দিনমান জ্বলজ্বলে বাল্বের মতোন
আমার চোখের মতো স্বজনের চোখ-
যেন আমুন্ড গ্রাস করবে এই আমাকেই
আমিই সমস্ত আহার নষ্ট করেছি নিমেষে।

শত্রুর দেখা নেই, অথচ আমারি শত্রু আমি-
জ্বলন্ত যৌবনে ছুটি ফ্যামিলি প্ল্যানিং কোথায়
কোথায় ডাক্তার কম্পাউন্ডার
যারা আমাকে অপারেশন করবে?

পুরুষত্ব বিলিয়ে ভাবি, কুড়ি টাকায় একসের চাল ও অন্যান্য
সামান্য দ্রব্যাদী মিলবে তো?
আমার চৌদিকে উৎসুক নয়ন আহ্লাদী হাসি
ঘৃণা আমি পাপী
এরা কেন জন্ম নেয়?
এরাই তো আমাদের সুখের বাধা অভিশাপ।
মরণ এসে নিয়ে যাক, নিয়ে যাক
লোকালয়ের কিসের ঠাঁই এই শত্রুর?
-বলে
প্রাসাদ প্রেমিকেরা

আমিও ভাবি তাই, ভাবি নতুন মডেলের চাকায় পিষ্ট হবো
আমার জন্যই তোমাদের এত দুঃখ
আহা দুঃখ
দুঃখরে!

আমিই পাপী, বুঝি তাই এ জন্মই আমার আজন্ম পাপ।

 

জন্মই আমার আজন্ম পাপ কবিতা - দাউদ হায়দার
জন্মই আমার আজন্ম পাপ কবিতা – দাউদ হায়দার

 

 

 

জন্মই আমার আজন্ম পাপ কবিতা ইতিহাস (সংক্ষিপ্ত)ঃ

প্রায় তিনযুগ পর ‘দাউদ হায়দারের শ্রেষ্ঠ কবিতা’ প্রকাশ হয়, ভূমিকায় উল্লেখ করি ওই দুই লাইন। শুনেছি, বাংলাদেশে ওই দুই লাইন ব্যাপক প্রচারিত। ‘জন্মই আমার আজন্ম পাপ’ একুশ বছর বয়সে লেখা। সত্যি ঘটনা। তখন, ঢাকা কলেজ থেকে পাশ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সদ্য ঢুকেছি। থাকতুম ১৪/২ মালিবাগে। পাশের বাড়িতে (ঠিকানা একই, ১৪/২ মালিবাগ) ডাক্তার আজহারুল ইসলামের বাস। তাঁর বাসার একঘরে অপারেশন থিয়েটার। প্রায়ই চিৎকার শুনি রোগীর। যারা অপারেশন করতে আসে, কী অপারেশন করা হয়, অজানা।

একদিন এক রোগী, চিৎকার করতে-করতে অপারেশন থিয়েটার থেকে বেরিয়ে আসে, তার লুঙ্গি রক্তাক্ত। অসহায় চোখমুখ। এক্ষুনি মরে যাবে যেন। তার এক হাতে কুড়ি টাকা। ওই টাকাও রক্তমাখা। তার মুখ থেকেই শুনি, কাতরস্বরে, ‘আমার দুই বিচি কাইটা দিচ্ছে।’ অর্থাৎ, স্টেরালাইজড্।

 

জন্মই আমার আজন্ম পাপ কবিতা আবৃত্তি ঃ

 

 

আরও দেখুনঃ

Competitive Exams Preparation Gurukul, GOLN Logo [ প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার প্রস্তুতি গুরুকুল, লোগো ]

মন্তব্য করুন