পিতা মাতার প্রতি কর্তব্য রচনা । Essay on Duty to parents । প্রতিবেদন রচনা

পিতা মাতার প্রতি কর্তব্য রচনা: যারা আমাদের এই পৃথিবীর আলো দেখিয়েছে, যথাযথ লালন পালনের মধ্য দিয়ে বড়ো করেছেন, যাদের স্নেহ, ভালোবাসা, শাসন আমাদের জীবনকে সঠিক মাত্রা দিয়েছে তারা আর কেউ না, তারা হলেন আমাদের মা-বাবা। সন্তানের প্রতি পিতামাতার অবদান অনস্বীকার্য। তাই পিতামাতার প্রতি প্রত্যেক সন্তানদেরও অনেক দায়িত্ব, কর্তব্য থাকে। এই নিয়েই আমাদের ছোটোদের জন্য আজকের উপস্থাপন পিতামাতার প্রতি কর্তব্য রচনা।

পিতা মাতার প্রতি কর্তব্য রচনা । Essay on Duty to parents
পিতা মাতার প্রতি কর্তব্য রচনা । Essay on Duty to parents

পিতা মাতার প্রতি কর্তব্য রচনা

ভূমিকাঃ

একটি শিশুর যখন জন্ম হয় তখন সে থাকে অনেক ছোট, আর অনেক বেশি অসহায় । সে হাঁটতে পারে না, কথা বলতে পারে না, নিজে নিজে খেতে পারে না । সে আসলে কিছুই পারে না । বাবা-মা এই ছোট্ট, অসহায় শিশুটিকে অনেক আদর-যত্ন করে বড় করে তোলেন । তাই মাবাবাই আমাদের সবচেয়ে আপনজন, সবচেয়ে প্রিয় মানুষ । আমরা আমাদের মা-বাবার কাছে চিরঋণী । মা বাবার ঋণ কখনোই শোধ করা যাবে না । তাই আমাদের উচিৎ মা বাবার প্রতি আমাদের কর্তব্য সঠিক ভাবে পালন করা ।

মাতা-পিতার অবদানঃ

একটি শিশু যখন মায়ের পেটে থাকে তখন মায়ের অনেক কষ্ট হয় । নয় মাস মায়ের পেটে থাকার পর শিশুটির যখন জন্ম হয় তখন মায়ের আরও বেশি কষ্ট হয় । মা-বাবা এই ছোট্ট অসহায় শিশুটিকে আদর-যত্ন করে বড় করে তোলেন । মা-বাবা কষ্ট করে টাকা উপার্জন করেন । আমাদের জন্য খাবার, কাপড়, বই-খাতা, ঔষধ, খেলনা কিনে দেন । মা আমাদের খাবার খাইয়ে দেন, গোসল করিয়ে দেন, কাপড় কেঁচে দেন, অসুখ হলে সারা রাত জেগে সেবা করেন । মা-বাবা আমাদের স্কুলে নিয়ে যান, লেখাপড়া শেখান, ভয় পেলে সান্ত্বনা দেন, আর অনেক অনেক আদর করেন ।

পিতা মাতার প্রতি কর্তব্য রচনা । Essay on Duty to parents
পিতা মাতার প্রতি কর্তব্য রচনা । Essay on Duty to parents

মাতা-পিতার প্রতি কর্তব্যঃ

মা-বাবা আমাদের অনেক আদর করেন, যত্ন নেন । সে জন্য সন্তানদেরও উচিৎ মা-বাবার কথা শোনা, তাদের যত্ন নেয়া । লেখাপড়া করলে তারা খুব খুশি হন । তাই আমাদের উচিৎ ভালো ভাবে লেখা পড়া করা, বিভিন্ন কাজে যতটুকু পারি তাদেরকে সহযোগিতা করা । মা-বাবা যা করতে বলেন তা ভালো ভাবে করা উচিৎ । যা করতে নিষেধ করেন সেটা কখনোই করা উচিৎ না । এ সম্পর্কে মহানবী (স) বলেন –

“মা-বাবার সন্তুষ্টির উপর আল্লাহ্‌র সন্তুষ্টি নির্ভর করে । আর আল্লাহ্‌র অসন্তুষ্টিও মা-বাবার অসন্তুষ্টির উপর নির্ভর করে ”

অর্থাৎ, মা-বাবা খুশি হলে আল্লাহও খুশি হন । আর মা-বাবা সন্তানের উপর মন খারাপ করলে আল্লাহ্‌ও ঐ সন্তানের উপর মন খারাপ করেন ।

বিখ্যাত হিন্দু পণ্ডিত স্বামী বিবেকান্দ বলেন –

“মনে রাখবে, মা বাবা হচ্ছেন স্রষ্টার প্রতিরূপ । তাই যে কোন উপায়ে মা-বাবাকে খুশি রাখবে । মা-বাবা খুশি হলে স্রষ্টাও তোমার উপর খুশি হবেন ।”

খ্রিস্টান ধর্মে বলা হয়েছে –

“বাচ্চারা মা-বাবার কথা শোনো । তাদেরকে সম্মান করো । তাহলেই তোমাদের ভালো হবে । আর অনেক দিন বাঁচবে ।”

মহানবী (স) বলেছেন –

“মায়ের পায়ের নিচে সন্তানের বেহেস্ত । ”

অর্থাৎ, যারা মায়ের সেবা করবে তারা বেহেস্তে যাবে ।

হিন্দু ধর্ম গ্রন্থে বলা হয়েছে –

“পিতা স্বর্গ পিতা ধর্ম”

অর্থাৎ, বাবার সেবা করলে অনেক পূর্ণ হবে, আর স্বর্গে যাওয়া যাবে ।

মা-বাবার সাথে সন্তানের আচরণঃ

মা-বাবার সাথে কখনোই খারাপ আচরণ করা উচিত না । আমরা কখনোই মা-বাবার সাথে বেয়াদবি করব না, তাদেরকে ধমক দিব না, তাদের সাথে রাগ করব না, উঁচু গলায় কথা বলব না । আমরা এমন কিছু করব না যাতে তাদের মন খারাপ হয় । পবিত্র কোরআন শরীফে আল্লাহ্‌ আদেশ দিয়েছেন –

“মা-বাবার সাথে ভালো ব্যাবহার করো । তাদেরকে ধমক দিবে না। তাদের সাথে ভদ্রভাবে কথা বলো ।”
[সূরা বনি ইসরাইলঃ ২৩-২৪]

স্বামী বিবেকান্দ বলেন –

“সে ছোট শিশুটি অনেক ভালো শিশু যে কখনই মা-বাবার সাথে কর্কশভাবে কথা বলে না ।”

সন্তানের আচরনে মা-বাবা কষ্ট পেলে আল্লাহ্‌ প্রচন্ড রাগ করেন । এ সম্পর্কে মহানবী (স) বলেছেন –

“মা-বাবকে কষ্ট দিলে সন্তানের গুনাহ আল্লাহ্‌ মাফ করেন না । তাকে তিনি পৃথিবীতেই নানা বিপদ দিয়ে শাস্তি দেন ।”

পিতা মাতার প্রতি কর্তব্য রচনা । Essay on Duty to parents
পিতা মাতার প্রতি কর্তব্য রচনা । Essay on Duty to parents

মা-বাবা ভুল করলে তাদের প্রতি কর্তব্যঃ

মা-বাবাও মানুষ । তারাও মাঝে মাঝে ভুল বা অন্যায় কাজ করতে পারেন । কিন্তু মা-বাবা সন্তানের জন্য এত কষ্ট করেন আর এত আদর করেন যে মা-বাবা কোন ভুল বা অন্যায় কাজ করলেও তাদের সাথে কখন কোন খারাপ আচরণ করা যাবে না । তখন তাদের ভদ্র ভাবে বুঝাতে হবে । অনেক সময় লজ্জা পেয়ে তারা সন্তানের কথা শুনতে চাইবেন না । তখন তারা যাদের কথা শোনেন (যেমনঃ শিক্ষক, দাদা-দাদি, নানা-নানি বা অন্য বড় কেউ) তাদেরকে দিয়ে বোঝাতে হবে ।

মা-বাবা কখনও কোন ভুল বা অন্যায় কাজ করতে বললে সেটা করা যাবে না । কিন্তু সে সময়ও তাদের সাথে খারাপ আচরণ করা যাবে না । তখনও তাদেরকে ভদ্র ভাবে বুঝাতে হবে ।

মা-বাবা সন্তানকে কখনও কষ্ট দিলেও মা-বাবাকে কষ্ট দেয়া যাবে না । মহানবী (স) বলেন –

“মা-বাবা সন্তানদের সাথে খারাপ ব্যবহার করলেও মা-বাবার সাথে খারাপ ব্যবহার করা যাবে না । বরং তাদেরকে সেবা করতে হবে ।”

বৃদ্ধ হলে মা-বাবার প্রতি কর্তব্যঃ

মা-বাবা বৃদ্ধ হলে তাদের যত্ন নেয়া উচিৎ । কখনোই বিরক্ত হওয়া উচিৎ না । আল্লাহ্‌ পবিত্র কোরআনের সূরা বনি ইসরাইলে বলেন যে–
মা বাবার সেবা করতে গিয়ে কখনও বিরক্ত হয়ে উহ্ শব্দটিও করা যাবে না ।

উপসংহারঃ

মা বাবার সাথে ভালো ব্যবহার করলে আর তাদের কথা মত চললে আমরা জীবনে অনেক বড় হতে পারবো । তখন সবাই আমাদেরকে খুব ভালো বলবে । তাই আমাদের উচিৎ মাতা-পিতার প্রতি কর্তব্যগুলো সঠিকভাবে পালন করা । তাহলে আমরাও একদিন বড় হব, জীবনে অনেক সুখ আর শান্তি পাব ।

আরও পড়ুনঃ

“পিতা মাতার প্রতি কর্তব্য রচনা । Essay on Duty to parents । প্রতিবেদন রচনা”-এ 1-টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন